চীনে নতুন একগুচ্ছ করোনার খোঁজ পেলেন গবেষকেরা

সার্স-কভ-২ ভাইরাসের উৎস খুঁজে বের করার চেষ্টা করছেন গবেষকেরা। বাদুড় এই ভাইরাসের একটি সম্ভাব্য উৎস হলেও মধ্যবর্তী কোনো প্রাণীর মাধ্যমেও তা ছড়িয়ে পড়তে পারে।

নিশাচর প্রাণী বাদুড়ে নতুন একগুচ্ছ করোনাভাইরাসের খোঁজ পাওয়ার দাবি করেছেন চীনা গবেষকেরা। তার মধ্যে একটির সঙ্গে বর্তমান বৈশ্বিক মহামারির জন্য দায়ী সার্স-কভ-২ ভাইরাসের জিনগতভাবে খুবই মিল আছে। দক্ষিণপশ্চিমাঞ্চলীয় চীনের ইউনান প্রদেশের ছোট একটি অঞ্চলে এসব ভাইরাস পাওয়া গেছে।-খবর সিএনএনের
এ গবেষণাই বলে দিচ্ছে, সেখানে বাদুড় কী পরিমাণ করোনাভাইরাসের বাহক এবং এতে কতগুলো ভাইরাস মানবদেহে সংক্রমণের আশঙ্কা রয়েছে।
শ্যানডং বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েইফিং শি ও তার সহকর্মীরা ২০১৯ সালের মে থেকে ২০২০ সালের নভেম্বর পর্যন্ত ছোট ছোট বনে বাস করা বাদুড় থেকে নমুনা সংগ্রহ করেছেন। তারা স্তন্যপায়ী প্রাণীটির প্রশ্রাব ও মুখের সোয়াব নিয়েছেন।
জার্নাল সেলে প্রকাশিত একটি নিবন্ধে বলা হয়েছে, বিভিন্ন প্রজাতির বাদুড় থেকে এখন পর্যন্ত গবেষকেরা চারটি সার্স-কভ-২ ভাইরাসসহ ২৪টি নোভেল করোনাভাইরাসের জেনোম সংগ্রহ করেছেন।

বিজ্ঞানীরা বলেন, রাইনোলোফাস পুসিলাস নামের একটি হর্সসু বাদুড় থেকে আরপিওয়াইএনও৬ নামে পরিচিত সংক্রমণ নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। স্পাইক প্রোটিনের জেনেটিক পার্থক্য ছাড়া যার সঙ্গে সার্স-কভ-২ ভাইরাসের খুবই মিল দেখা গেছে।
নিবন্ধে বলা হয়, ২০২০ সালের জুনে থাইল্যান্ড থেকে সংগৃহীত সার্স-কভ-২ সংশ্লিষ্ট ভাইরাসের নমুনাসহ এসব ফল বলে দিচ্ছে, বাদুড়ের মধ্যে সার্স-কভ-২ এর মতো ভাইরাস কীভাবে ছড়িয়ে পড়ছে। কোনো কোনো অঞ্চলে এটি খুব বেশিই ঘটছে।
সার্স-কভ-২ ভাইরাসের উৎস খুঁজে বের করার চেষ্টা করছেন গবেষকেরা। বাদুড় এই ভাইরাসের একটি সম্ভাব্য উৎস হলেও মধ্যবর্তী কোনো প্রাণীর মাধ্যমেও তা ছড়িয়ে পড়তে পারে।