খাঁটি পণ্য নিয়ে ঢাবি ছাত্রীর আস্থার বাজার

করোনাকালীন লকডাউনে বিশ্বজুড়ে এক থমথমে অবস্থা। বাংলাদেশেও সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও বন্ধ। প্রায় ৪ মাস ছুটি কাটাচ্ছেন শিক্ষার্থীরা।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে ইতিবাচক কাজে লাগিয়ে এরই মধ্যে দেখা গেছে অনেক শিক্ষার্থী উদ্যোক্তা হিসেবে লকডাউনের এই সময়টাকে কাজে লাগাচ্ছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের সমাজবিজ্ঞান বিভাগ ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের আবাসিক শিক্ষার্থী মাহবুবা শান্তা।

শান্তার গ্রামের বাড়ি সাতক্ষীরায়। পাশে সুন্দরবনের অবস্থান হওয়ায় অবস্থানগত ও গুণগত মানে সারাদেশে সাতক্ষীরার মধু এবং ঘি এর সুনাম আছে বেশ। এসব পণ্য নিয়ে শান্তা শুরু করেন “আস্থার বাজার” নামের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ভিত্তিক অনলাইন বাজার।

তিন বোনের মধ্যে সবচেয়ে ছোট শান্তা, তাঁর কোন ভাই নাই৷ তাই তিনি ছোটবেলা থেকেই বিশ্বাস করেন নারী ক্ষমতায়নে৷ আর তাইতো লকডাউনে বাড়িতে অলস বসে না থেকে চিন্তা করেন নিজে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হবেন এবং সাতক্ষীরার খাঁটি মঘু, ঘি ও অন্যান্য পণ্য দেশবাসীর কাছে পৌঁছে দিবেন তুলনামূলক কম লাভে ও স্বল্পমূল্যে৷

খাঁটি মধু সংগ্রহ করা হচ্ছে

শান্তা বলেন, “করোনা কালীন এই লকডাউন যখন বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ তখন বাড়িতে এসে দেখি খাঁটি মধু এবং ঘি এর মতো পণ্য সব আমার হাতের কাছেই আছে। তাই আমি সিদ্ধান্ত নিই আমাদের নিজেদের বাড়িতে উৎপাদিত এবং প্রস্তুতকৃত সব খাঁটি পন্য নিয়ে যাত্রা শুরু করবো। আমার অনেক দিনের স্বপ্ন উদ্যোক্তা হওয়ার।

খাঁটি ঘি

তিনি আরও বলেন, আমি মূলত আমাদের নিজেদের বাড়িতে উৎপাদিত খেতের দেশী সরিষা থেকে ঘানিতে ভাঙ্গানো খাঁটি সরিষার তেল। বাড়ির ছাদের চাক থেকে মৌয়াল কতৃক সংগ্রহীত খাঁটি মধু। বাড়ির নারিকেল গাছের নারিকেল থেকে ঘানিতে ভাঙ্গানো খাঁটি নারিকেলের তেল। বাড়ির খেতে লাগানো হলুদ থেকে বাছাইকৃত হলুদ সিদ্ধ ও রৌদ্রে শুকিয়ে মেসিনে ভাঙ্গানো হলুদের গুড়া। আর বাড়ির পাশের ঘোষ পাড়া থেকে নিজে যেয়ে দাড়িয়ে থেকে মাখন ওঠানো দেশী খাঁটি ঘি নিয়েই আমার “আস্থার বাজার” এর যাত্রা শুরু।

খাঁটি নারিকেল তেল

তিনি আরও বলেন, কেউ পণ্য অর্ডার করলে আমি এসএ (SA) পরিবহণ সাতক্ষীরা শাখা থেকে তাদের পাঠানো ঠিকানায় কুরিয়ার এ পাঠিয়ে দেই।

নতুন উদ্যোক্তাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, যারা উদ্যোক্তা হওয়ার স্বপ্ন দেখেন বা কাজ করতে আগ্রহী আমার মতে তাদের উচিত নিয়ত ঠিক রেখে সঠিক মনোবল নিয়ে নিজেদের কাজে লেগে থাকতে হবে। তাহলে সাফল্য অবশ্যই আসবে ইনশাআল্লাহ।

খাঁটি ও গুণগত পণ্য ক্রয় করতে শান্তার “আস্থার বাজার” এর ফেসবুক গ্রুপের লিংকঃ The Rising Campus