কলেজের সহকারী অধ্যাপক পদ থাকছে না, হচ্ছে ‘জ্যেষ্ঠ প্রভাষক’

বেসরকারি মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক স্কুল অ্যান্ড কলেজে থাকছে না সহকারী অধ্যাপক পদ। ‘জ্যেষ্ঠ প্রভাষক’ পদ থাকবে এর পরিবর্তে। এ ছাড়া বেসরকারি শিক্ষকদের বিএড-এমএড ডিগ্রি উচ্চতর স্কেলের জন্য গণ্য হবে না। সংশোধিত নীতিমালায় এ বিধান রয়েছে। অবশ্য আগের মতোই বেতন স্কেল ও অন্যান্য সুবিধা থাকবে এসব পদে।

জানা গেছে, বেসরকারি শিক্ষকরা বিএড ও এমএড ডিগ্রি অর্জন করলেও উচ্চতর স্কেল গণনা করা হবে না। এ ডিগ্রি থাকা শিক্ষকদের বেতন হবে ১০ম গ্রেড। তবে এমপিওভুক্তির সময় ডিগ্রি না থাকলে এক ধাপ নিচে বেতন হবে। পরবর্তী পাঁচ বছরের মধ্যে প্রশিক্ষণসংক্রান্ত ডিগ্রিটি অর্জন করতে হবে।

নীতিমালায় বেসরকারি ডিগ্রি কলেজে সহকারী অধ্যাপক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জ্যেষ্ঠ প্রভাষক পদে ৫০ শতাংশ পদোন্নতির বিধান থাকছে। ডিগ্রি কলেজে এখন থেকে আট বছর চাকরিপূর্তিতে প্রভাষক ও সহকারী অধ্যাপক পদের ৫০ শতাংশ বিভিন্ন সূচকে ১০০ নম্বরের মূল্যায়নের ভিত্তিতে পদোন্নতি দেওয়া হবে সহকারী অধ্যাপক পদে।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক এ প্রসঙ্গে গণমাধ্যমকে বলেন, উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয়, স্কুল অ্যান্ড কলেজ ও উচ্চমাধ্যমিক কলেজে সহকারী অধ্যাপক পদ থাকছে না, জ্যেষ্ঠ প্রভাষক পদ থাকবে। এ নীতিমালা জারির আগে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে কর্মরতদের পদবি বহাল থাকবে।

তিনি বলেন, এক্ষেত্রে বেতন স্কেল ও সুযোগ-সুবিধাও থাকবে। নীতিমালা জারির পর সহকারী অধ্যাপক পদ থাকবে না। পদটি জ্যেষ্ঠ প্রভাষক হিসেবে পরিবর্তিত হবে। জ্যেষ্ঠ প্রভাষক ও সহকারী অধ্যাপকের বেতন স্কেল ও সুবিধা একই রকম হবে বলে জানান তিনি।

মহাপরিচালক জানান, ডিগ্রি কলেজের এমপিওভুক্ত প্রভাষক পদে আট বছর চাকরিপূর্তিতে প্যাটার্নভুক্ত প্রভাষক/সহকারী অধ্যাপকের ৫০ শতাংশ বিভিন্ন সূচকে ১০০ নম্বরের মূল্যায়নের ভিত্তিতে পদোন্নতি পাবেন সহকারী অধ্যাপক পদে। এতে পদ সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে না। অন্য প্রভাষকরা এমপিওভুক্তির ১০ বছর চাকরিপূর্তিতে নবম থেকে অষ্টম গ্রেড প্রাপ্য হবেন। পরবর্তীতে ছয় বছরের মধ্যে বা এমপিওভুক্তির ১৬ বছর চাকরিপূর্তিতে সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পাবেন।

মহাপরিচালক আরো বলেন, পদোন্নতি ব্যতীত চাকরিজীবনে দুটির বেশি উচ্চতর গ্রেড বা টাইম স্কেল পাবেন না। শুধু ডিগ্রি কলেজে সহকারী অধ্যাপক পদ থাকবে। উচ্চমাধ্যমিক কলেজ ডিগ্রি কলেজ হলে জ্যেষ্ঠ প্রভাষকদের পদবি সহকারী অধ্যাপক হিসেবে পরিবর্তিত হবে। বেতন স্কেল ও চলমান সুবিধাদি আগের মতোই থাকবে বলে জানান তিনি।