করোনা টেস্টের নমুনা দিলেন সাকিব

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী বলেছেন, সাকিব আল হাসানের করোনা টেস্ট বাধ্যতামূলক নয়। যেহেতু তিনি যুক্তরাষ্ট্র থেকে কাতার এয়ারওয়েজে ঢাকা এসেছেন, তাই তাকে করোনা টেস্ট দিয়েই বিমানে উঠতে হয়েছে এবং সেটা মাত্র দুদিন আগেই।

বাংলাদেশে আসার পর আর সাকিবের করোনা টেস্ট করানোর বাধ্যবাধকতা ছিল না। শুধু আইসোলেশনে থাকলেই চলবে। কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন। তাকে করোনা টেস্ট করাতেই হলো।

কারণ সাকিব আগামী ৫ সেপ্টেম্বর থেকে বিকেএসপিতে একান্তে নিবিড় অনুশীলন করবেন। করোনা টেস্টে নেগেটিভ রিপোর্ট আসলেই কেবল বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার বিকেএসপিতে প্রবেশের অনুমতি পাবেন।

শেষ পর্যন্ত করোনা টেস্ট করিয়েছেন সাকিব। একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, আজ (বৃহস্পতিবার) বিকেল সাড়ে ৪টার পর তার করোনা টেস্টের নমুনা নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সাকিব বনানীতে নিজের বাসায় বসেই করোনা টেস্টের নমুনা দিয়েছেন।

ধারণা করা হচ্ছে, আগামীকাল শুক্রবার হয়তো রিপোর্ট পাওয়া যাবে। রিপোর্ট নেগেটিভ হলে ৫ সেপ্টেম্বর শনিবার বিকেএসপি যাবেন সাকিব। সেখানে ৪ থেকে ৫ সপ্তাহ নিবিড় অনুশীলন করবেন।

বলার অপেক্ষা রাখে না, আগামী ২৯ অক্টোবর আইসিসির এক বছরের নিষেধাজ্ঞা মুক্ত হচ্ছেন সাকিব। তাকে আবার শ্রীলঙ্কা সফরে দ্বিতীয় টেস্টে খেলানোর কথা ভাবা হচ্ছে। বিকেএসপির সেই একান্ত অনুশীলনটা মূলত সে লক্ষ্যেই করবেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।