এসএসসিতে ৩, এইচএসসিতে ১ বিষয় কমিয়ে পরীক্ষা নেয়ার পরিকল্পনা

চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষায় বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়, ধর্ম এবং আইসিটি বিষয়ে পরীক্ষা না নেয়ার কথা ভাবছে কর্তৃপক্ষ। একইসঙ্গে এইচএসসিতেও আইসিটি বিষয়ে পরীক্ষা না নেয়ার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। বিষয়ে কমানোর সঙ্গে সঙ্গে কমতে পারে পরীক্ষার নম্বর ও সময়। করোনার কারণে পর্যাপ্ত ক্লাস নিতে না পরায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হতে পারে।

শিক্ষা বোর্ডের কর্মকাতরা জানিয়েছেন, চলতি বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নিতে আগেই সিলেবাস সংক্ষিপ্ত করা হয়েছে। ইতিমধ্যে পরীক্ষাও নেওয়ার প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। সেইসঙ্গে পরীক্ষায় কয়েকটি বিষয় কমানোর পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। পরিকল্পনা অনুযায়ী ৫০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা হবে।

এদিকে, সম্প্রতি এসএসসি-এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা আয়োজন নিয়ে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় এসএসসি-এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা অনুষ্ঠানের সম্ভাব্য তারিখও নির্ধারণ করা হয়। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার টেস্ট পরীক্ষা ৩ এপ্রিলের মধ্যে শেষ করতে হবে। এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার টেস্ট পরীক্ষা শেষ করতে হবে ৭ জুনের মধ্যে।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের সচিব অধ্যাপক তপন কুমার সরকার গণমাধ্যমকে বলেন, সকল বিষয়ে পরীক্ষা না নিয়ে অধিকাংশ বিষয়ে পরীক্ষা নেয়ার একটা পরিকল্পনা আমাদের আছে। এতে ১০০ নম্বরের পরিবর্তে ৫০ নম্বরের পরীক্ষা নেয়ার কথাও ভাবা হচ্ছে। এছাড়া সময় কমিয়ে তিন ঘণ্টার পরিবর্তে দেড় ঘণ্টা বা দুই ঘণ্টার পরীক্ষা নেয়ারও পরিকল্পনাও রয়েছে।

জানা গেছে, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ে দুই পাবলিক পরীক্ষায় বাংলা প্রথম পত্রে লিখিত অংশের ছয়টি প্রশ্নের মধ্যে যে কোনো তিনটি উত্তর দিতে হবে। যেসব বিষয়ে ব্যবহারিক পরীক্ষা নেই সেগুলোর লিখিত অংশে ১১টি প্রশ্নের মধ্যে যে কোনো চারটি প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। ব্যবহারিক পরীক্ষা রয়েছে এমন বিষয়ে লিখিত অংশে আটটি প্রশ্নের মধ্যে যে কোনো তিনটির উত্তর দিতে হবে।

এবিষয়ে ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নেহাল আহমেদ গণমাধ্যমকে জানিয়েছে, করোনার কারণে সশরীরে শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় ক্লাস নেওয়া সম্ভব হয়নি। এখনো স্কুল-কলেজ বন্ধ রয়েছে। তাই নম্বর কমিয়ে ও সময় কমিয়ে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়ার ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে।