এইচএসসির টেস্ট পরীক্ষা হবে না

করোনা মহামারির থাবায় এক বছরের বেশি সময় ধরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। এ পরিস্থিতিতে ২০২১ খ্রিষ্টাব্দের এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কোন টেস্ট পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে না। টেস্ট পরীক্ষা ছাড়াই এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরণ শুরু করছে ঢাকা বোর্ড। টেস্ট পরীক্ষার জন্য কলেজগুলোও কোন ফি আদায় করতে পারবে না। আগামী ২৯ জুন থেকে শুরু হয়ে ১১ জুলাই পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনলাইনে বিলম্ব ফি ছাড়া ২০২১ খ্রিষ্টাব্দের এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ করতে পারবেন শিক্ষার্থীরা। আর ১২ জুলাইয়ের মধ্যে শিক্ষার্থীদের ফি অনলাইনে বোর্ডে পাঠাতে হবে শিক্ষার্থীদের।

এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ বিজ্ঞপ্তিতে ঢাকা বোর্ড বলছে, ২০২১ খ্রিষ্টাব্দের এইচএসসি পরীক্ষা উপলক্ষে কোন নির্বাচনী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে না। এ সংক্রান্ত কোন ফি আদায় করতে পারবেনা কলেজগুলো।

করোনার কারণে গত বছর এইচএসসি পরীক্ষা হয়নি। জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার ফলের গড়ের ওপর এইচএসসির ফল দেয়া হয়। আর ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীরা দ্বাদশ শ্রেণিতে কোন ক্লাসই করতে পারেননি। তাই, তাদের জন্য সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ করা হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিকল্পনা, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ৮৪ দিন ক্লাস করিয়ে এইচএসসি পরীক্ষা নেয়া হবে। এ পরিস্থিতিতে টেস্ট পরীক্ষা ছাড়া এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অনলাইন ফরম পূরণ শুরু হচ্ছে।

জানা গেছে, ২০২১ খ্রিষ্টাব্দের এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে ইচ্ছুক পরীক্ষার্থীরা আগামী ২৯ জুন থেকে ১১ জুলাই পর্যন্ত বিলম্ব ফি ছাড়া অনলাইনে ফরম পূরণ করতে পারবেন। বিলম্ব ফি ছাড়া অনলাইনে ফি ১২ জুলাই পর্যন্ত জমা দেয়া যাবে। এর আগে ২৮ জুন রেজিস্ট্রেশনের মেয়াদ থাকা সাপেক্ষে অনিয়মিত পরীক্ষার্থীদের তালিকাভুক্তির জন্য সংশ্লিষ্ট কলেজের অধ্যক্ষ বরাবর সাদা কাগজে আবেদন করতে হবে। এদিন জিপিএ উন্নয়ন ও এক বা দুই বিষয়ের পরীক্ষার্থী হিসেবে অংশগ্রণে ইচ্ছুক পরীক্ষার্থীদের সংশ্লিষ্ট কলেজের অধ্যক্ষ বরাবর সাদা কাগজে আবেদন করতে হবে। ২০২০ খ্রিষ্টাব্দে মূল্যায়নের মাধ্যমে জিপিএ ৫এর কম পাওয়া শিক্ষার্থীরা জিপিএ উন্নয়নের সুযোগ পাবেন এবং তাদের সব বিষয়ে পরীক্ষা দিতে হবে। তবে, ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দের অংশিক বিষয়ে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা এ সুযোগ পাবেন না। ২৮ জুন ঢাকা বোর্ডের ওয়েবসাইটে শিক্ষার্থীদের তালিকা প্রকাশ হবে।

এইচএসসি পরীক্ষার ফি বাবদ পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে পত্রপ্রতি ১০০ টাকা, ব্যবহারিকের ফি বাবদ পত্রপ্রতি ২৫ টাকা, একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্টের ফি বাবদ পরীক্ষার্থী প্রতি ৫০ টাকা, মূল সনদ বাবদ ১০০ টাকা, বয়েজ স্কাউট ও গার্লস গাইড ফি বাবদ ১৫ টাকা এবং জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ফি বাবদ পরীক্ষার্থীপ্রতি ৫ টাকা নেয়া হবে। এছাড়া অনিয়মিত শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে পরীক্ষার্থীপ্রতি ১০০ টাকা অনিয়মিত ফি নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রাইভেট পরীক্ষার্থী ফি বাবদ ১০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। কেন্দ্র ফি বাবদ প্রতি পরীক্ষার্থীকে ৪০০টাকা ও ব্যবহারিক পরীক্ষার ফি বাবদ পরীক্ষার্থীদের পত্র প্রতি ২৫ টাকা দিতে হবে।

এইচএসসির ফরম পূরণের মোট ফি নির্ধারণ করে দিয়েছে ঢাকা বোর্ড। বোর্ড বলছে, বিজ্ঞান শাখার জন্য ২ হাজার ৫০০ টাকা, মানবিক এবং ব্যবসায় শিক্ষা শাখার জন্য ১ হাজার ৯৪০ টাকা করে ফি নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা শাখার কোন পরীক্ষার্থীর ৪র্থ বিষয়ে ব্যবহারিক পরীক্ষা থাকলে এ ফিয়ের সাথে অতিরিক্ত ১৪০ টাকা যুক্ত হবে। আর মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা শাখার কোন শিক্ষার্থীর নৈর্বচনিক বিষয়ে ব্যবহারিক থাকলে বিষয় প্রতি আরও ১৪০ টাকা যোগ হবে।

বোর্ড বলছে, নির্ধারিত ফিয়ের অতিরিক্ত কোন ফি আদায় করা যাবে না। এ সংক্রান্ত কোন অভিযোগ পাওয়া গেলে ফরম পূরণের প্যানেল বন্ধ করাসহ প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।