আত্মহত্যা বোকামি লিখে স্ট্যাটাস, কিছুক্ষণ পর গলায় ফাঁস মিমির

গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে চাঁদপুরের মতলবে আফসানা মিমি (১৭) নামে এক কলেজছাত্রী। তবে আত্মহত্যার কিছুক্ষণ আগে সে নিজের ফেসবুক পেজে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছে। এর কিছুক্ষণ পর তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মতলব দক্ষিণ উপজেলা সদরের মধ্য কলাদী এলাকার একটি বাসায় এ ঘটনা ঘটে।

আফসানা মিমি মতলব পৌরসভার দক্ষিণ বাইশপুর গ্রামের মনির হোসেন ফরাজীর ছোট মেয়ে। সে স্থানীয় রয়মনেননেছা মহিলা ডিগ্রি কলেজে একাদশ শ্রেণিতে পড়তো। আত্মহত্যার আগে ফেসবুকের স্ট্যাটাসে মিমি লিখেছেন, “আত্মহত্যা বোকামি ছাড়া আর কিছুই নয়, জীবন মানে দুঃখ, কষ্ট, আনন্দ, বেদনা, এসব মোকাবেলা করে জীবনকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে! পরিশেষে একটা কথাই বলতে চাই, জীবন মানে যুদ্ধ!”

ওই কলেজছাত্রীর আত্মহত্যার বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে কিছু জানা যায়নি। পুলিশ জানায়, আত্মহত্যার কিছুক্ষণ আগে আফসানা মিমি (Afsana MiMi) তার ফেসবুক পেজে একটি স্ট্যাটাস লিখে যায়।

তবে সেখানে তার আত্মহত্যার জন্য কাউকে দায়ী করে কিছুই লিখে যায়নি। পরে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, শহরের মধ্য কলাদী এলাকায় আব্দুর রব মিয়ার ভবনের তিনতলায় আফসানার বড় বোন হালিমা ভাড়া থাকে। ওই বাসায় আফসানা তার বোনের সঙ্গে থেকে পড়াশুনা করতো। ঘটনার দিন হালিমা তার চার বছরের শিশু ছেলেকে আফসানার কাছে রেখে দক্ষিণ বাইশপুর গ্রামে বাবার বাড়িতে যায়। কিন্তু সন্ধ্যায় বাসায় ফিরে দেখে ভেতর থেকে দরজা লাগানো। পরে আশপাশের লোকজনের সহায়তায় হালিমা ঘরে ঢুকে বোনের ফাঁসিতে ঝুলানো লাশ দেখতে পায়।

মতলব দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) স্বপন কুমার আইচ বলেন, কী কারণে ওই কলেজছাত্রী আত্মহত্যা ঘটেছে তা এখনো জানা যায়নি। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে। আজ বুধবার লাশের ময়নাতদন্ত হবে।