আজ থেকে বুস্টার ডোজ দেওয়া শুরু

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে দেশে আজ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে টিকার বুস্টার ডোজ দেওয়া শুরু হচ্ছে। বুস্টার ডোজ হিসেবে ফাইজারের টিকা দেওয়া হচ্ছে। প্রথম দফায় রাজধানীর বাসিন্দাদের মধ্যে যাদের বয়স ৬০ বছরের বেশি এবং যারা করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সামনের সারিতে আছেন, তাদেরই এ ডোজ দেওয়া হবে।

সোমবার (২৭ ডিসেম্বর) দুপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে বুস্টার ডোজ দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব লোকমান হোসেন মিয়া।

শুরুতে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বুস্টার ডোজ পাচ্ছেন সম্মুখসারির যোদ্ধা-চিকিৎসক, নার্স, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী, গণমাধ্যমকর্মী এবং বয়স্করা। আগের দুই ডোজ যে কেন্দ্র থেকে দেওয়া হয়েছে, ওই কেন্দ্র থেকেই বুস্টার ডোজ দেওয়ার জন্য এসএমএস পাঠানো হবে। এর জন্য নতুন করে নিবন্ধন করার প্রয়োজন নেই।

এদিকে, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. আহামেদুল কবীর বলেন, যাদের টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার মেয়াদ ৬ মাস পার হয়েছে, পর্যায়ক্রমে তাদের মোবাইল নম্বরে এসএমএস যাবে। এ ছাড়া, যাদের বয়স ৬০ বছরের বেশি এবং যারা ফ্রন্টলাইনার তাদের কাছে এসএমএস যাবে। এসএমএস পাওয়া ব্যক্তিরা করোনা টিকার বুস্টার ডোজ দিতে পারবে।

তিনি বলেন, ‘ওমিক্রনের থেকে রক্ষা পেতে সবাইকে টিকা নেওয়ার সঙ্গে মাস্ক পরতে হবে। এ বিষয়ে আমরা স্থানীয় ইউনিয়ন ও পৌরসভা পর্যায়েও কথা বলেছি, যাতে সেসব এলাকার রিকশাওয়ালা থেকে সবাই টিকা নেয়।’

তিনি আরও বলেন, সুরক্ষা অ্যাপ হালনাগাদ করার কাজ চলছে। সে কারণে আপাতত শুধু ঢাকায় বুস্টার ডোজ দেওয়া হবে। ঢাকার বাইরে দেওয়া হবে আরও কিছুদিন পর।

এর আগে গত ১৯ ডিসেম্বর করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন রোধে ১৭ জন প্রবীণ নাগরিককে দিয়ে শুরু হয় বুস্টার ডোজ কার্যক্রম। প্রথম ব্যক্তি হিসাবে বুস্টার ডোজ নেন কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স রুনু ভেরোনিকা কস্তা।